প্লেটো: সফিস্ট

সফিস্ট (ইংরেজিতে সফিস্ট; গ্রিকে সফিস্তেস)। সফিস্ট নামক সংলাপটি থিয়াইতিতাস-এর উত্তরখণ্ড হিসেবে বিবেচ্য। সক্রেটিস ও প্লেটোর জ্ঞানতত্ত্বের বিপরীতপক্ষীয় ধারকদের মধ্যে অন্যতম হলো সফিস্টগণ; তাই হয়ত প্লেটো জ্ঞানের প্রকৃতি ও বিষয় অনুসন্ধানে সফিস্টদের প্রকৃতি ও তাঁদের অনুসৃত পদ্ধতি নিরূপণে প্রবৃত্ত হন। সফিস্টদের বাগ্মিতার পারদর্শিতাকে যেভাবে সংলাপটিতে বর্ণনা করা যায় তা হলো: ‘এটি ধনী, সুপরিচিত তরুণদের প্রবুদ্ধ করে যাতে তাদের সামনে চমৎকারভাবে সদ্গুণ সম্পর্কিত ধারণা উপস্থাপন করে দর্শনি লাভ করা যায়; এটি (বিভিন্ন অবস্থায়) একই বিষয়ে কথিত জ্ঞানের বিভিন্ন সামগ্রীকে ফেরি করে বিক্রি করে; ব্যক্তি পরিসরের বিতর্কে এটি ঠিক-বেঠিক প্রত্যয় নিরূপণ করে জয়লাভের প্রচেষ্টা চালায়; মানুষের মনের মিথ্যা ও দুর্বল যুক্তির ধারণা নিকেশ করে তাকে এটি পরিষ্কার করে।’ সত্যিকার জ্ঞান ও তার উদ্যোগের সঙ্গে এর পার্থক্য হলো এই যে, সফিস্ট কোনো বিষয় সম্পর্কে সত্যিকারভাবে কিছু জানার প্রয়োজন বোধ করে না, কোনো কিছু সত্যপ্রতিম হলেই তার চলে, তিনি তা নিয়েই তর্কযুদ্ধে প্রবৃত্ত হন। এই সংলাপটির অন্তিমে প্লেটো বিভিন্ন বিমূর্ত প্রত্যয়–অস্তি (is/be), নাস্তি (is not), অস্তিমানতা (being), ‘হয়ে-ওঠা (becoming), ইত্যাদির ব্যাখ্যার মাধ্যমে বস্তুবাদী ও ভাববাদী বিশ্বের পার্থক্য তুলে ধরেন। বাস্তবতা নিয়ে ভাববাদী ও বস্তুবাদী দুই পরিপ্রেক্ষিতই এই সংলাপটির মূল প্রতিপাদ্য।

৳ 450.00

4 in stock

Book Details

Weight .24 kg
Dimensions .5 × 5.5 × 8.1 in
Language

Binding Type

ISBN

Publishers

Release date

Pages

Price

$ 450, $ 20.00, £ 10.00

Height

5.5

Width

9

Weight

About The Author

আমিনুল ইসলাম ভুইয়া

আমিনুল ইসলাম ভুইয়া ১৯৫৩ সালের ১ অক্টোবর নরসিংদী জেলায় জন্মগ্রহণ করেন। ১৯৭৪ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ইংরেজিতে এবং ১৯৮৬ সালে যুক্তরাষ্ট্রের আমেরিকান ইউনিভার্সিটি থেকে নীতি বিশ্লেষণে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি অর্জন করেন তিনি। তাঁর উল্লেখযোগ্য প্রকাশনা : প্লেটোর আইনকানুন (অনুবাদ : বাংলা একাডেমি); সক্রেটিসের জবানবন্দি, ইউথিফ্রো, প্রোতাগোরাস, ক্রিতো, মেনো, ফিদো, ফিদ্রাস, লেকিজ, লাইসিস, ইউথিদামাস (অনুবাদ: পাঠক সমাবেশ); কার্ল পপার: নির্বাচিত দার্শনিক রচনা (অনুবাদ ও সম্পাদনা; ৩ খন্ডে; বাংলা একাডেমি); জগতের লাঞ্ছিত (ফ্রাঞ্জ ফাঁনোর The Wretched of the Earth-এর অনুবাদ; বাংলা একাডেমি ও মওলা ব্রাদার্স); বাংলাদেশের সত্তার অন্বেষা (আকবর আলি খানের Discovery of Bangladesh-এর অনুবাদ; বাংলা একাডেমি); অত্যাচারিতের শিক্ষা (পাওলো ফ্রেইরির Pedagogy of the Oppressed-এর অনুবাদ; আরবান); রবীন্দ্রনাখ: দর্শনভাবনা (মূর্ধন্য) ও প্লেটোর রিপাবলিক-এর ভূমিকা (পাঠক সমাবেশ) । ২০১০ সালে তিনি বাংলাদেশ সরকারের সচিব পদ থেকে অবসর লাভ করেন (সর্বশেষ দায়িত্বপালন: সচিব, অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগ)। বর্তমানে বাংলায় প্লেটোসমগ্র অনুবাদে ব্যাপৃত। পছন্দের বিষয়: বিজ্ঞানের দর্শন ও তুলনামূলক কিংবদন্তিশাস্ত্র।

সফিস্ট (ইংরেজিতে সফিস্ট; গ্রিকে সফিস্তেস)। সফিস্ট নামক সংলাপটি থিয়াইতিতাস-এর উত্তরখণ্ড হিসেবে বিবেচ্য। সক্রেটিস ও প্লেটোর জ্ঞানতত্ত্বের বিপরীতপক্ষীয় ধারকদের মধ্যে অন্যতম হলো সফিস্টগণ; তাই হয়ত প্লেটো জ্ঞানের প্রকৃতি ও বিষয় অনুসন্ধানে সফিস্টদের প্রকৃতি ও তাঁদের অনুসৃত পদ্ধতি নিরূপণে প্রবৃত্ত হন। সফিস্টদের বাগ্মিতার পারদর্শিতাকে যেভাবে সংলাপটিতে বর্ণনা করা যায় তা হলো: ‘এটি ধনী, সুপরিচিত তরুণদের প্রবুদ্ধ করে যাতে তাদের সামনে চমৎকারভাবে সদ্গুণ সম্পর্কিত ধারণা উপস্থাপন করে দর্শনি লাভ করা যায়; এটি (বিভিন্ন অবস্থায়) একই বিষয়ে কথিত জ্ঞানের বিভিন্ন সামগ্রীকে ফেরি করে বিক্রি করে; ব্যক্তি পরিসরের বিতর্কে এটি ঠিক-বেঠিক প্রত্যয় নিরূপণ করে জয়লাভের প্রচেষ্টা চালায়; মানুষের মনের মিথ্যা ও দুর্বল যুক্তির ধারণা নিকেশ করে তাকে এটি পরিষ্কার করে।’ সত্যিকার জ্ঞান ও তার উদ্যোগের সঙ্গে এর পার্থক্য হলো এই যে, সফিস্ট কোনো বিষয় সম্পর্কে সত্যিকারভাবে কিছু জানার প্রয়োজন বোধ করে না, কোনো কিছু সত্যপ্রতিম হলেই তার চলে, তিনি তা নিয়েই তর্কযুদ্ধে প্রবৃত্ত হন। এই সংলাপটির অন্তিমে প্লেটো বিভিন্ন বিমূর্ত প্রত্যয়–অস্তি (is/be), নাস্তি (is not), অস্তিমানতা (being), ‘হয়ে-ওঠা (becoming), ইত্যাদির ব্যাখ্যার মাধ্যমে বস্তুবাদী ও ভাববাদী বিশ্বের পার্থক্য তুলে ধরেন। বাস্তবতা নিয়ে ভাববাদী ও বস্তুবাদী দুই পরিপ্রেক্ষিতই এই সংলাপটির মূল প্রতিপাদ্য।

Reviews

There are no reviews yet.

Be the first to review “প্লেটো: সফিস্ট”

Your email address will not be published. Required fields are marked *